fbpx
খুলনা

ডুমুরিয়ার খর্নিয়ার মানুষের জন্য জীবনটা উৎসর্গ করে দিব; আফরোজা খানম মিতা

শেখ মাহতাব হোসেন (ডুমুরিয়া) খুলনাঃ ডুমুরিয়ার খর্ণিয়ায় চেয়ারম্যান পদে আ’লীগের মনােনয়ন প্রত্যাশী আফরোজা খানম মিতা। আসন্ন ইউপি নির্বাচনে ডুমুরিয়া উপজেলার খর্নিয়া ইউনিয়নে এবার অন্যতম আকর্ষণ নারী উদ্যোক্তা আফরোজা খানম মিতা। তিনি ইউনিয়নে প্রতিটি ওয়ার্ডে ওয়ার্ডে প্রচার-প্রচারণার করছেন। চেয়ারম্যান পদে দলীয় মনােনয়ন পেলে হয়তঃ তিনিই গড়বেন অনন্য রেকর্ড। জানা গেছে, ডুমুরিয়া উপজেলা সদর সংলগ্ন ঐতিহ্যবাহী ৪ নং খর্ণিয়া ইউনিয়ন।শিক্ষা, সভ্যতা ও আধুনিকতার দিক দিয়ে স্বাধীনতা পরবর্তী সময়ে তার শশুর শিক্ষক ডাঃ খােরশেদ আলম ওই ইউনিয়নের আওয়ামী লীগের প্রতিষ্ঠ্যতা সভাপতি ও প্রথম চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছিলেন ।

আফরোজা খানমের স্বামী রবিউল আলম এক সময়ের তুখোড় যুবলীগ নেতা ও বর্তমানে খুলনা সিটি কর্পোরেশনের লাইসেন্স অফিসার। ফলে ইউনিয়ন জুড়েই রয়েছে তাদের ব্যাপক পরিচিতি। প্রতিটি পাড়া মহল্লাবাসীর সাথে রয়েছে পারিবারিক ভাবে আত্মীয় সম্পর্ক। এছাড়াও অন্য সম্প্রদায়ের মানুষের সাথেও আছে সু সম্পর্ক। সব মিলিয়ে প্রচার-প্রচারণায় তার জনবলের কমতি নেই। প্রতিদিনএই জনপদের মানুষ অনেক এগিয়ে। আবার রাজনীতির দিক দিয়েও এখানে ক্ষমতাসীন ও বিরােধী দলে আছে শক্ত অবস্থান। তবে ইউপি চেয়ারম্যান পদে এই ইউনিয়নে ক্ষমতাসীন দলের না না প্রার্থীতা নিয়ে দেখা যায় জটিলতা। ইউনিয়নের প্রথম সারির নেতাদের মধ্যে পরস্পারিক বিরােধ ও মত- পার্থক্যের কারণে দলের প্রার্থী হেরে যান বার বার। এবারও মনােনয়ন নিয়ে চলছে রশি টানাটানি। হয়েছে মনোনয়ন যুদ্ধ।

আর এই যুদ্ধে বিজয়ী হতে মাঠে নেমেছেন নারী উদ্যোক্তা আফরােজা মনােনয়ন প্রত্যাশায় তিনিও এখন মাঠে মনােনয়ন প্রত্যাশী আফরােজা খানম মিতা’র সংক্ষিপ্ত জীবনীতে দেখা গেছে, হয়তঃ কখনাে কম কখনাে বেশি। তিনি জন্ম সুত্রেই আওয়ামী পরিবারের মাধ্যমে তার রাজনীতি জীবন শুরু ২০০১ সালে বিয়ের কিছুদিন সাংসারিক কাজ শেষে নিজস্ব ব্যবসা, বরফ মিল, রাজনীতি আর নারী ভিত্তিক উন্নয়ন কাজ করেন । তিনি রানাই সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের বিদ্যালয়ে দাতা সদস্য ছিলেন এবং বর্তমানে খর্ণিয়া মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের বার বার সভাপতি। তিনি রাজনীতিতে ইউনিয়ন আওয়ামী লীগের সাধারণ সদস্য। এছাড়াও তিনি মৎস্য চাষ ও উৎপাদনের সাথে সম্পৃক্ত,একজন সফল ব্যবসায়ী, খর্ণিয়া বাজারে তার রয়েছে একটি বরফ কল ও মৎস্য ব্যবসা বর্তমানে নিজের ব্যবসার সাথে সাথে রাজনীতি ও সামাজিক কর্মকান্ডের মধ্যেই সময় পার করেন, তিনি বিশ্বাস করেনএকজন নারী প্রার্থী হিসেবে ‌বিপুল ভোটে বিজয়ী হবেন।

এবার তিনি নৌকা মাথায় নিয়ে এলাকায় ঘুরতে শুরু করেছে । জাতীর পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শকে সামনে রেখে কলেজে পড়াশুনা অবস্থায় ছাত্রলীগের মানুষের পাশে থাকার চেষ্টা করছি। একজন নারী হয়ে আজ আমি সাবলম্বী। জীবন কাটানাের পরে শুরু করেন মাছের খামার সহ সবইআছে। মানুষের নির্বাচিত হয়েছি। এখন ইউনিয়ন বাসীর পদপ্রার্থী হিসেবে আত্ন প্রকাশ করে প্রচার প্রচারণা শুরু করেছি। তারপরও আমি আওয়ামীলীগের রাজনীতি করে মানুষের জন্য আমার জীবনটা উৎসর্গ করে দিব।

সবার আগে সর্বশেষ নিউজ পেতে এড হোন আমাদের ফেসবুক গ্রুপে দক্ষিণবঙ্গ

Related Articles

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

Back to top button